বাংলাদেশের খনিজ সম্পদ

#‎খনিজ সম্পদ প্রাকৃতিক গ্যাস‬


✯ বাংলাদেশ প্রথম গ্যাস উত্তোলন শুরু করে ১৯৫৭ সালে। প্রথম গ্যাস পাওয়া যায় হরিপুরে।


✯ তিতাস গ্যাস ক্ষেত্র আবিষ্কৃত হয়?-১৯৬১সালে।


✯ টেংরাটিলা গ্যাসফিল্ড কোন জেলায় অবস্থিত- সুনামগঞ্জে।


✯ দেশে কোন গ্যাসক্ষেত্রে প্রথম অগ্নিকান্ড ঘটে- মাগুরছড়া।


✯ সেমুতাং গ্যাস ফিল্ড কোথায়- মানিকছড়ি, খাগড়াছড়ি।


✯ কামতা, কান্ত গ্যাসক্ষেত্রটি কোথায়- গাজীপুর।


✯ প্রাকৃতিক গ্যাসের কত ভাগ বিদ্যুৎ উৎপাদনে ব্যবহৃত হয়- ৪৬.৬৩ ভাগ (সার কারখানায় ২১.৭ ভাগ)।


✯ কোন সাল থেকে বাংলাদেশ ভূখন্ডে তেল গ্যাস অনুসন্ধান শুরু হয়- ১৯১০ সাল।


✯ বাংলাদেশে এ পর্যন্ত কতটি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃত হয়েছে- ২৬টি (সর্বশেষ রুপঞ্জ) (এপ্রিল’০৯)।


✯ বাংলাদেশে প্রাকৃতিক গ্যাসের মজুদের পরিমান কত- ২৮.৪ টিএফসি (উত্তোলন যোগ্য ১৫.১৯টিএফসি)।


✯ বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় গ্যাসক্ষেত্র কোনটি- তিতাস।


✯ হরিপুর তেল আবিষ্কৃত হয় ১৯৮৬ সালে।


✯ মাগুড়ছড়া গ্যাসফিল্ড কোন জেলায় অবস্থিত- মৌলবীবাজার (কমলগঞ্জ)।


✯ জ্বালানী মন্ত্রণালয়ের হিসাবে গ্যাসের সিস্টেম লস ৪০%।


✯ প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য বাংলাদেশের সমগ্র ভূখন্ডকে ২৩টি ব্লকে ভাগ করা হয়েছে।


✯ বাংলাদেশে সিএনজি জ্বালানী হিসাবে ব্যবহার শুরু করে ১৯৮২ সালে।


✯ ভোলার শাহবাজপুর গ্যাসক্ষেত্রটি আবিষ্কার করে কে- বাপেক্স।


✯ বিবিয়ানা গ্যাস ক্ষেত্রটি আবিষ্কৃত হয় কবে- ১৯৯৮ সালে।


✯ ঢাকায় সরবরাহকৃত গ্যাস কোন গ্যাসক্ষেত্র থেকে আসে- তিতাস।

‪#‎ঝর্ণা‬


✯ শীতল পানির ঝর্ণার অবস্থান – হিমছড়ি, জাফলং।


✯ চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডের পাহাড়িয়া অঞ্চলে আছে উষ্ণ।


✯ হিমছড়ি ঝর্ণার কাছে মূল্যবান কি খনিজ পাওয়া গেছে? – সিলিকন।


✯ রিছাং ঝর্ণা’ কোথায় অবস্থিত – আলুটিলা, খাগড়াছড়ি।


✯ মাধবকুন্ড জলপ্রপাত কোথা থেকে উৎপন্ন হয়েছে – মৌলবীবাজার জেলার বড়লেখা থানার পাথরিয়া পাহাড় হতে (পানি পড়ে ২৫০ ফুট উপর থেকে)।

#‎তেল‬


✯ কোথায় গন্ধক পাওয়া গেছে- চট্টগ্রামের কুতুবদিয়ায়।


✯ প্রধান তেল ক্ষেত্রটি কোথায় অবস্থিত- গোয়ানঘাটের হরিপুরে।


✯ দ্বিতীয় তেলক্ষেত্রটি কোথায় আবিষ্কৃত হয়েছে- মৌলবীবাজার জেলার বরমচলে অন্যান্য খনিজ।


✯ বাংলাদেশের মাটিতে কিসের আধিক্য দেখা যায়- অ্যালুমিনিয়াম।


✯ চীনামাটির মজুদ আছে ময়মনসিংহের বিজয়পুরে। আরো আছে রাজশাহীর পত্নীতলায়, চট্টগ্রামের পটিয়ায়।


✯ কাঁচবালির সর্বাধিক মজুদ সিলেটে।


✯ মধ্যপাড়ার কঠিন শিলা খনি দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুরে অবস্থিত।


✯ কোথায় ইউরিনিয়াম পাওয়া গেছে- মৌলবীবাজারের কুলাউড়া পাহাড়ে ১৯৯৪ সালে।


✯ বাংলাদেশের কোথায় তেজস্ক্রিয় বালি (কালো সোনা) আছে- কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতে (বদর মোকাম ও টেকনাফ)।


✯ সুরমা বেসিন খনিজ সম্পদের জন্য বিখ্যাত।


✯ বেঙ্গল বেসিন হল বাংলাদেশ ভূ-গর্ভস্থ গঠন কাঠামো।

‪#‎কয়লা‬


✯ হীরক ও স্বর্ণ প্রাপ্তির সম্ভাবনা আছে কোথায়- বড় পুকুরিয়ায়।


✯ কোন কয়লা খনিতে দস্তা পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে- দিনাজপুরের মধ্যপাড়া।


✯ বড় পুকুরিয়া কয়লা খনি কত সালে আবিষ্কৃত হয়- ১৯৮৫ সালে।


✯ ফুলবাড়িয়া কয়লা খনিতে বিটুমিনাস কয়লা পাওয়া যায়।


✯ উন্নমানের কয়লার সন্ধান পাওয়া যায় জামালগঞ্জে।

One comment

Add Comment

Required fields are marked *. Your email address will not be published.

2 + fifteen =