গল্পে গল্পে মহাদেশকে জানা: আফ্রিকা- ২

জানেন নাকি ভাই, আফ্রিকাতে জন্মহার সবথেকে বেশী !! আর হবেই বা না কেন? দুই দুইটা মরুভূমি আছে এখানে। সাহারার নামতো সবাই জানে। আরেকটার নাম জানেন তো? ওই যে ম্যাপের নিচের দিকে, কালো হরি(পড়ুন কালাহরি) মরুভূমি। মরুভূমি আছে আর গরম থাকবে না তাই কি হয়! আর যত বেশী গরম তত বেশী বাচ্চা উৎপাদন ।থাক ওসব কথা………!!

আফ্রিকার মানুষ গুলা লম্বা চওড়া হয়। আরে ভাই, শুধু মানুষ ক্যান, পৃথিবীর সব থেকে লম্বা নদীটাও তো এখানে। নীল নদীর কথা বলতেসিলাম, ৬,৬৫০ কিমি লম্বা, ভাবা যায়?

আপনি কি আফ্রিকার সব থেকে উচু জায়গায় এক কাপ কফি খেতে চান?, চলেন তাঞ্জানিয়াতে যাই। ম্যাপ আছে তো, বলেন তো তাঞ্জানিয়া কোথায়? ওই যে কেনিয়ার নিচে, পাইসেন? তাঞ্জানিয়ার কিলিমাঞ্জারো পাহাড়টাই হলো আফ্রিকার সব থেকে উচু জায়গা।

আর যদি, বিসিএস ক্যাডার হতে না পারিয়া কোন ভাইয়ের মরার শখ হয় ( সিরিয়াসলি নিবেন না প্লিজ) তাহলে সোজা চলে যান জিবুতিতে। ওখানে লেক_আসাল নামে একটা জায়গা আছে। মাটি থেকে প্রায় ১৫৬ মিটার গভীর এবং এটাই আফ্রিকার সর্বনিম্ন স্থান। কোনো চিন্তাভাবনা না করেই লাফ দিবেন লেক_আসালে !! আহত হবেন না, ডাইরেক্ট নিহত!!

আফ্রিকা নিয়ে টক ঝাল মিস্ট অনেক কিছু লিখলাম। …ভয় হয়তেসে আফ্রিকা আপা আবার আমাকে ঢিস_ঢুস না মেরে বসেন। ভালো কথা আফ্রিকার যে লম্বা একটা শিং আছে জানেন তো? ম্যাপ আছে না আপনার সাম্নে?…ডান দিকে তাকান, হ্যা ওই যে সোমালিয়া, ইরিত্রিয়া, ইথিওপিয়া আর জিবুতি, এই ৪ টা দেশকে একসাথে আফ্রিকার শিং বলে।

কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ সাগর রহমান

Add Comment

Required fields are marked *. Your email address will not be published.

sixteen + 1 =